Breaking News
Home / এক্সক্লুসিভ / মৃত্যুর আগে এটা কী বলে গেলো নুসরাত

মৃত্যুর আগে এটা কী বলে গেলো নুসরাত

Spread the love

যা বলে গিয়েছেন নুসরাত- ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসা কেন্দ্রের আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফি মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বুধবার রাত ৯টা ৩০ মিনিটে মারা যান তিনি। জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের সমন্বয়ক ডা. সামন্তলাল সেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। লাইফ সাপোর্টও তেমন কাজ করছিল না। এরপর চিকিৎসকরা তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন।

সর্বশেষ সোমবার (৮ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে দেখা করতে গেলে ভাইয়ের কাছে বিভিন্ন আকুতি জানান দগ্ধ নুসরাত। এ সময় ওই ছাত্রীর মা সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

নুসরাত বলেন, ‘যারা আমার গায়ে আগুন দিয়েছে, তাদের অনেক পরিচিত মনে হয়েছে। তবে আমি তাদের ফেসটা মনে করতে পারছি না। আমাকে একটু চিন্তা করতে দেন দাদা। আমি চিন্তা করে সব বলমু।’

নুসরাত আরও বলেন, ‘ভাই, আমি এখানে চিকিৎসায় বাঁচবো না। তোরা যেভাবে পারিস প্রয়োজনে আমাকে বাইরে নিয়ে যা’

ওই মাদ্রাসীছাত্রী বলেন, ‘ভাই, আমার যা কিছু হয়ে যাক, আমার যত কিছু হয়ে যাক। অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলা ও তার সহযোগী সবাই যারা আমার গায়ে আগুন দিয়েছে তাদের যেন যথাযথ শাস্তি হয়।’

যেকোনো মুহূর্তে বোনের যেকোনো কিছু ঘটে যেতে পারে জানিয়ে নুসরাতের ভাই সে সময় বলেন, ‘গতকাল রাত ১২টা ৪৫ মিনিটে যে চিকিৎসক আমার বোনকে দেখছেন তিনি জানিয়েছেন, ছোট ভাই দেখ এই হাসপাতালে আমি চার বছর ধরে চিকিৎসা দেই।

আমি আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, এই হাসপাতালে ৭০ শতাংশ পোড়া অবস্থায় যত রোগী এসেছে, তারা এখান থেকে কেউ বেঁচে ফিরে যেতে পারেননি।’

তিনি আরও বলেন, ‘তোমার আপুর শরীরের ৭৫ শতাংশ পুড়ে গেছে। এখন আবার ৮৫ শতাংশ বলছেন ওনারা। তাহলে চিন্তা কর, ইমপসিবল, কখনো সম্ভব না। এখন তোমরা যদি পারো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলে ওনাকে দ্রুত দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করো।’

উল্লেখ্য, গত ২৭ মার্চ মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ-দৌলাহ ওই ছাত্রীকে যৌন হয়রানির চেষ্টা করেন- এমন অভিযোগ এনে ছাত্রীর মা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন। মামলার পর পুলিশ তাৎক্ষণিক অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠায়।

ওই ঘটনায় গত শনিবার সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় যায় নুসরাত জাহান রাফি। পরে সেখান থেকে তাকে ছাদে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়। এর পর চারজন বোরকা পরিহিত তাকে অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে মামলা ও অভিযোগ তুলে নিতে চাপ দেয়। রাফি অস্বীকৃতি জানালে তারা তার গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়।

আগুনে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টার মামলায় এক নারীসহ ৯ জনকে আটক করা হয়েছে ও ৪ জনকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। আজ প্রধান অভিযুক্ত মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদৌল্লাহ’র রিমান্ড শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

আইসিইউতে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকা নুসরাত বাবার কাছে দুই ফোঁটা পানি চাইলো

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসা ছাত্রীটি যন্ত্রণায় ছটফট করছেন। বারবার পানি চাইলেও তাকে পানি দেয়া হচ্ছে না। রোববার সকালে বাবাকে পেয়ে ছাত্রীটি তার কাছে পানির জন্য আকুতি জানান।

পানি দেয়া চিকিৎসকদের নিষেধ বলায় অনুনয় করে ছাত্রীটি বলেন, ‘বাবা আমার গলাটা শুকিয়ে যাচ্ছে। চুরি করে হলেও দুই ফোঁটা পানি দাও বাবা।’ শরীরে ৭০ শতাংশের বেশি পোড়া ক্ষত নিয়ে অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন ছাত্রীটি। মেয়েকে দেখতে গিয়ে অজানা আশঙ্কায় তাকে চোখ বন্ধ না করার আকুতি জানান অসহায় বাবা। তিনি বলেন, ‘ঘুমাস নে মা চোখ খোলা রাখ।’

বার্ন ইউনিটের আইসিইউতে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকা মেয়ের কাছে দুপুর ১টার দিকে যান অসহায় বাবা। আইসিইউ থেকে বেরিয়ে তিনি নানা কথা বলেন। তিনি বলেন, আমার মেয়ে আমার দিকে তাকিয়ে কি যেন বলতে চেয়েছে, পানি খেতে চেয়েছে।

চোখ বন্ধ করলে আদরের মেয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে পারে এমন আশঙ্কা থেকেই তিনি বলেন, ‘ঘুমাস নে মা। চোখ খোলা রাখ। জানি, তোর খুব কষ্ট হচ্ছে। তবু চোখ বন্ধ করিস না মা।’ তিনি আরও বলেন, তার মেয়ের কিছু হলে তিনি বাঁচবেন না।

তার একমাত্র মেয়েটি খুব শান্ত আর মেধাবী। পড়াশোনায় সব সময় সে প্রথম হয়। দাখিল পরীক্ষায় সে জিপিএ-৫ পেয়েছে। তিনি এখন তার মেয়েকে বাঁচাতে চান। রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, তার যেন সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিত হয়।

দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়ে তিনি বলেন, আমার মেয়েকে আপনারা বাঁচান। আল্লাহ যেন আমার মেয়েকে বাঁচিয়ে রাখেন। ছাত্রীটির বাবা আরও বলেন, আমিও ওই মাদ্রাসায় লেখাপড়া করেছি। আমার ছেলেমেয়েও পড়ছে।

আগে এমন জানলে আমার মেয়েকে এ মাদ্রাসায় দিতাম না। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কাছে এর সুষ্ঠু বিচার চাই। মেয়ের জন্য তিনি দেশবাসীর কাছে দোয়া চান। হাসপাতালের বারান্দায় ছাত্রীটির মায়ের পায়ের কাছে বসে বিলাপ করছিলেন তার দুই ভাই। মা বারবার জ্ঞান হারাচ্ছিলেন। অপরদিকে মেয়ের একটু স্বস্তির জন্য একবার মেয়ের কাছে আবার চিকিৎসকের কাছে ছুটছিলেন অসহায় বাবা।

তিন ভাই-বোনের মধ্যে বোনটি সবার ছোট। আদরের ছোট বোনকে দেখতে আইসিইউর দরজায় বারবার উঁকি দিচ্ছিল ছোট ভাই। তার দু’চোখ বেয়ে জল গড়িয়ে পড়ছিল। তার গাল ভিজে যাচ্ছিল বারবার। তিনি মনে মনে প্রার্থনা করছিল বোনের জন্য। ছোট ভাই জানান, বাড়িতে বোনটি তাদের সবাইকে আনন্দে মাতিয়ে রাখে। এখন আমার বোনের মুখের দিকে তাকাতে পারি না।

বোন আমার কথাও বলে না। বোনের কিছু হলে … । কথাগুলো বলতে বলতে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। ছাত্রীটিকে আইসিইউতে রাখার পর থেকে তার মা এর পাশেই রয়েছেন। বুক চাপড়িয়ে হাউমাউ করে তিনি প্রায় কাঁদছেন। সেখানে গেলে তিনি বলেন, তার মেয়ে অনেক সময় পানি খেতে চায়। কিন্তু ডাক্তারের মানা থাকায় পানি দিতে পারি না।

তিনি বলেন, তার মেয়ে হঠাৎ হঠাৎ চোখ খোলে, তাকিয়ে থাকে। কথা বলতে পারে না। পরীক্ষার দিন মেয়ে তাকে সালাম করে বের হয়েছিল। মেয়ের কপালে চুমু দিয়ে বলেছিলেন, ভালো করে পরীক্ষা দিতে। আজ সেই মেয়ে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। আর্তনাদ করে তিনি বলেন, ‘আমার মেয়েকে তুমি (সৃষ্টিকর্তা) ভিক্ষা দাও।

আমার মেয়েকে তুমি বাঁচিয়ে রাখো।’ এরপর তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। ছাত্রীটির সেরে ওঠা নিয়ে আশা-নিরাশার দোলাচলে রয়েছেন আত্মীয়স্বজনরা। তার জন্য সবাই প্রার্থনা করছেন।

ছাত্রীটির এমন শারীরিক অবস্থার কারণে তার মায়ের কান্না থামছে না। বাড়ির পাশের মাদ্রাসাটিতে ছাত্রীটির বড় ভাই পড়াশোনা করেছেন। ছোট ভাইও পড়ছেন। তাদের বাবা ও দাদাও এ মাদ্রাসার ছাত্র ছিলেন। বোনের ওপর এমন আক্রমণ কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলেন না বড় ভাই।

ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, আলিম পরীক্ষা চলছিল। প্রশাসনের লোকজনও ছিল চারপাশে। এমন পরিবেশে কি করে সন্ত্রাসীরা এমন ঘটনা ঘটাল। শনিবার সকালে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় পরীক্ষা দিতে গেলে ছাত্রীটিকে ওই মাদ্রাসা ভবনের ছাদে নিয়ে দুর্বৃত্তরা তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এরপর তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ফেনী সদর হাসপাতাল থেকে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়। মেয়েটিকে দেখে সোনাগাজী পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকন জানান, কুখ্যাত সন্ত্রাসী অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলা ২২ বছর ধরে মাদ্রাসার প্রিন্সিপালের চেয়ারটি দখল করে আছে।

তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি, নির্যাতনসহ বহু অভিযোগ রয়েছে। মাদ্রাসা ও আশপাশ ঘিরে অধ্যক্ষ একটি সন্ত্রাসী বাহিনী গড়ে তুলেছে। নানা অভিযোগে ২০১৬ সালে জামায়াত থেকে অধ্যক্ষকে বহিষ্কার করা হয়।

এ ছাড়া নাশকতা ও পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় ফেনী সদর ও সোনাগাজী মডেল থানায় তার বিরুদ্ধে তিনটি মামলা রয়েছে। এ সময় মামলায় তিনি জামিনে ছাড়া পান।

Check Also

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী যেভাবে যৌনপেশায়

Spread the loveসুমি। জন্ম মধ্যবিত্ত পরিবারে। রাজধানীর মিরপুরে বেড়ে ওঠা। পড়েন একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন …